দীর্ঘদিনের ১০০দিনের কাজের মজুরি বকেয়া, ক্ষোভে তৃণমূলের কোর কমিটির সদস্যর নেতৃত্বে এলাকাতেই বিক্ষোভ শুরু করে দিলো কর্মীরা, দ্রুত বকেয়া দেওয়া না হলে পঞ্চায়েত ঘেরাওয়ের হুঁশিয়ারি

ASANSOL EXPRESS NEWS মনোজ কুমার সিং পানাগড়: দীর্ঘদিনের ১০০দিনের কাজের মজুরি বকেয়া, ক্ষোভে তৃণমূলের কোর কমিটির সদস্যর নেতৃত্বে এলাকাতেই বিক্ষোভ শুরু করে দিলো কর্মীরা, দ্রুত বকেয়া দেওয়া না হলে পঞ্চায়েত ঘেরাওয়ের হুঁশিয়ারি

কারোর ১বছর আবার কারো ৬ মাসের বকেয়া ১০০দিনের কাজের মজুরি। প্রচন্ড গ্রীষ্মের দাবদাহে সংসার চালাতে হিমশিম খেতে হচ্ছে আর্থিক সংকটে কাঁকসার বিদবিহারের কাজলাডিহির ১০০অধিক পরিবারকে। শুক্রবার সকাল থেকেই পঞ্চায়েতের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দিয়ে এলাকাতেই বিক্ষোভ শুরু করে দেয় ১০০ দিনের কাজের কর্মীরা, নেতৃত্ব দেন তৃণমূলের স্থানীয় কোর কমিটির সদস্য। তিনিও একই অভিযোগ করে বলেন তিনি একদিকে যেমন ১০০ দিনের কাজের দেখভালের দায়িত্বে রয়েছেন, তেমনি ১০০দিনের কাজও করেন। বছর পেরিয়েছে তার অ্যাকাউন্টেও ঢোকেনি বকেয়া টাকা অভিযোগ করেন তিনি। ১০০ দিনের কাজের কর্মীদের অভিযোগ ঝড়-বৃষ্টি রোদ সহ্য করে দিনের পর দিন পরিশ্রম করেছেন। কিন্তু মজুরি পাচ্ছেন না সময়মতো। যার জেরে রীতিমতো হিমশিম খেতে হচ্ছে পরিবার-পরিজন নিয়ে সংসার চালাতে। এলাকার অধিকাংশ পরিবারই দিনমজুরি কাজের উপর নির্ভরশীল। ৪২ ডিগ্রি তাপমাত্রায় সকলেই প্রায়ই গৃহবন্দী। বৃদ্ধ-বৃদ্ধাদের পাশাপাশি অসুস্থ হয়ে পড়ছেন সাধারন মানুষ যার জেরে দিনমজুরি কাজে যেতে পারছেন না। কারোর ১০হাজার কারোর ২০ হাজার আবার কারোর আরো বেশি টাকা বকেয়া রয়েছে। একাধিকবার বিদবিহার গ্রাম পঞ্চায়েতকে মৌখিক ভাবে জানানো সত্ত্বেও কোনো সুরাহা মিলছেনা অভিযোগ করেন কাজের কর্মীরা। স্থানীয় তৃণমূলের কোর কমিটির সদস্য তথা ১০০ দিনের কাজের দেখভালের দায়িত্বে থাকা নরহরি মাঝি অভিযোগ করেন পঞ্চায়েতকে জানিয়েছেন কিন্তু পঞ্চায়েত বলছে কেন্দ্রীয় সরকার টাকা না দিলে তারা কোথায় টাকা পাবে।১০০ দিনের কাজের কর্মীদের দাবি অবিলম্বে তাদের বকেয়া টাকা দেওয়া হোক তা না হলে তারা পঞ্চায়েত ঘেরাও করে আন্দোললে হাঁটবেন। কাজের সুপারভাইজার জয়দেব মণ্ডল বলেন কিছু টাকা বাকি আছে সেই কাজের খতিয়ান ইতিমধ্যেই পঞ্চায়েতে দেওয়া হয়েছে দ্রুত ব্যাংক একাউন্টে সেই টাকা ঢুকে যাবে বলেও আশ্বাস দেন। বিদবিহার গ্রাম পঞ্চায়েত সদস্য স্বপন সূত্রধর বলেন বছরের শেষ সময় মার্চ মাস তাই কিছু সমস্যা দেখা দিয়েছিল বকেয়া টাকা খুব দ্রুত কর্মীরা পেয়ে যাবে বলেও তিনি আশ্বাস দেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!